দুঃসময়ের ঘড়ি

মিহির হারুন
মিহির হারুন 299 Views

অনেকদিন ঘড়িটার অসুখ
কাঁটা তিনটে বেসুরো
তৃণভোজ প্রাণীর মতো শুয়ে-বসে জাবর কাটে।

ঘড়ির কাঁটার সাথে সময় ঠিকঠাক লাগছে না,

ফারাক হয়ে খসে যাচ্ছে
ইঞ্জিন থেকে চাকা, গাইতি, হাঁপড় থেকে ডাঁট
আগুন থেকে খসে যাচ্ছে উত্তাপ,

ঘড়ির অসুখে গিলে খায় ঘামেদের জীবন।

পুরনো এ শহরে মেকানিক যারা আছেন
এ রোগের দাওয়াই জানেন না
অন্ধের মতো কানে ঘঁষে আন্দাজে ঝাঁকান, শুঁকে দেখেন।

এর স্বভাবে অভ্যস্ত নয় তারা; বিরল অসুখ,

ছায়া মেপে তবু আর কত সূর্যের জীবন
পাখির ওম প্রসব করে শুধু অসময়।

ঝাঁকঝাঁক পাতা উড়ে যায় গাছের শরীর থেকে
মরে থাকে অসংখ্য হরিণের প্রাণ, মাছের জীবন।

গোধুলীর রঙ মেখে শুয়ে দাবানল; পতঙ্গ বুঝেনা তা,

ঘড়ি তবু চলে সময় চলে না, ঘড়ির অসুখ।

একি তবে “গ্রেভস ওয়াচ!”
হেনরি গ্রেভসের রেখে যাওয়া দুর্ভাগ্য সময়!

Share This Article
মিহির হারুন একজন নাট্যব্যাক্তিত্ব, একাধারে তিনি শিক্ষক, লেখক, মঞ্চাভিনেতা, এবং একজন বাচিক শিল্পী। পাশাপাশি তিনি “বিনোদবাড়ি আইডিয়াল কলেজ” এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান। ২০১৭ ও ২০১৮ সালের বই মেলায় “মেঘের বাড়ি” নামক একক অভিনয় ও কিশোর নাটকের দুটি বই প্রকাশিত হয়। তার প্রতিষ্ঠীত “শিশু থিয়েটার” এর মাধ্যমে শিশু কিশোরদের সাংস্কৃতিক ও মানসিক প্রতিভা বিকাশে তিনি নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।